পটিয়ায় ছনহরা আ’লীগ সংবাদ সন্মেলন

71

সেলিম চৌধুরী পটিয়া (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি: চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা আ’লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি মোতাহেরুল ইসলাম চৌধুরী নিজেই দলীয় শৃংখলা ভঙ্গ করেছেন বলে অভিযোগ করেছেন তৃণমূল আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ।শুক্রবার অপরাহ্নে পটিয়া প্রেসক্লাবে ছনহরা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়, ছনহরা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদে উপ-নির্বাচনে মনোনয়ন পত্র জমা দানের শেষ দিন আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মামুনুর রশিদ রাসেলের মনোনয়ন পত্র জমাদানের পর জেলা আ’লীগের সি: সহ-সভাপতি মোতাহেরুল ইসলাম চৌধুরী উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আকম সামশুজ্জামান চৌধুরী,

সেক্রেটারী অধ্যাপক হারুনুর রশিদ ও ছনহরা ইউনিয়নে আহবায়ক কমিটির বিরুদ্ধে দলের বিদ্রোহী প্রার্থীদের পক্ষ নেয়ার অভিযোগ আনেন। নৌকার বিরোধীতাকারীদের বিরুদ্ধে উপজেলা আ’লীগ দলীয় ব্যবস্থা না নেয়াকে তিনি রহস্যজনক বলে মন্তব্য করেন। এমন একটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হলে দলে তীব্র প্রতিক্রিয়া ও মোতাহেরুল ইসলাম চৌধুরীর বিরুদ্ধে একটি অংশ ক্ষোভে ফেটে পড়ে।

সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়, বিগত ইউপি নির্বাচনে দলের সবাই প্রার্থীর পক্ষে কাজ করে নৌকাকে বিজয়ী করে। নৌকার প্রার্থী মুক্তিযোদ্ধা সামশুল ইসলাম বিজয়ী হওয়ার ৩দিন পর আকস্মিকভাবে ইন্তেকাল করেন।আগামী ১৫ জুন উপ-নির্বাচনে দলের প্রার্থীর পক্ষে সবাই যখন ঐক্যবদ্ধ তখন দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি দলে বিভাজন সৃষ্টির হীন উদ্দেশ্যে ছনহরা ইউনিয়ন কমিটির বিরুদ্ধে প্রকাশ্য জনসভায় বক্তব্য রাখেন। তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়ার জন্য দলের সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, জেলা নেতৃবৃন্দের নিকট দাবী জানানো হয়। দলীয় প্রার্থী যদি পরাজিত হয়।তাহলে তার দায় মোতাহেরুল ইসলাম চৌধুরী ব্যক্তিগতভাবে দায়ী থাকবেন বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের আহবায়ক মো: ইউনুস,যুগ্ম আহবায়ক ওসমান আলমদার , ১ নং ওয়ার্ড সভাপতি রফিক চৌধুরী, ২ নং ওয়ার্ডের সাধারন সম্পাদক আনোয়ার সিকদার এবং ৬ নং সভাপতি লেদু মুন্সী ।