রূপগঞ্জে তীর ও রূপচাঁদা তেলের মিলে ভোক্তা অধিদপ্তরের অভিযান

51

রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি: নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে সিটি গ্রুপের তীর সয়াবিন তেলের গোডাইন ও রূপচাঁদা ওয়েল মিলে অভিযান করেছে ভোক্তা অধিদপ্তর।বৃহস্পতিবার বেলা ১১টা থেকে এ অভিযান শুরু হয়। ভোক্তা অধিদপ্তরের পরিচালক মঞ্জুর মোহাম্মদ শাহরিয়ারের নেতৃত্বে অভিযানে উপস্থিত ছিলেন সহকারি পরিচালক আব্দুর জব্বার মন্ডল, ফাহমিনা আক্তার, সেলিমুজ্জামান। অভিযানে মঞ্জুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার বলেন, মিল মালিক সহ প্রতিষ্ঠানগুলোর সংশ্লিষ্টদের সাথে গতকালের বৈঠকে সিদান্ত হয়েছিলো আজ থেকে প্রতিটি প্রতিষ্ঠানে আমরা যাচাই বাছাই করবো। আজ থেকে আমরা বিভিন্ন কারখানা পরির্দশন ও তদারিক শুরু করেছি। আমরা বিভিন্ন তথ্য এখানে যাচাই বাছাই করছি।

আমরা সিটি গ্রুপের এই মিলের একজন পরিচালকের উপস্থিতিতে এখানে মিল থেকে তৈল সরবরাহ কম দেয়া হচ্ছে কিনা না, ট্রাকে মাল উঠছে কিনা সেটি দেখছি। আমরা এই মিলে আজকে তদারকি করে যেটি পেয়েছি, মিলে সরবরাহ স্বাভাবিক আছে। সাধারণ মানুষের কাছে যে তথ্য ছড়ানো হয়েছে মিল সয়াবিন নাই সেটি মিথ্যা। মিলে সরবরাহ স্বাভাবিক আছে। সাপ্লাই চেনের কোথায় গাপলা হচ্ছে আমরা সেটি বের করার চেষ্টা করছি। এছাড়া কিছু অসাধু ব্যবসায়ী মূল্য বাড়িয়েছে কিনা সেটিও তদারকি করা হবে। তিনি আরো বলেন, তেলের কোন সংকট নাই। কি হচ্ছে আমরা যাচাই বাছাই করছি। মূল্যের কারসাজি নাকি অন্য কিছু তা খুঁজে বের করা হবে। আগে মিল থেকে পাকা রশিদ দেয়া হতো না তবে এখন সেটি হচ্ছে। আমরা প্রতি তিন মাসের একটি জরিপ দেখছি। সেখানে সরবরাহ ঠিক রয়েছে।দেশে বজ্য তেল যারা তৈরি করছেন। তারা বিধি অনুসারে সংশ্লিষ্ট গ অনুসারে ইউনিট প্রতি মূল্য নিধারণ হবে কিন্তু এখানে সেটি দেয়া হচ্ছে না। সেটি আমাদের নজরধারী করছি।

তিনি বলেন, একজন ভোক্তা যিনি পন্য কিনেন সেটি তার অধিকার আর যিনি দিচ্ছেন সেটি তার দায়িত্ব। এই অধিকার আর দায়িত্বের মাঝখানে সাপ্লাই যেনো নিশ্চিত তাকে সেটিই আমরা দেখবো। ভোক্তা যেন পন্যটি পায় এবং সরবরাহ যেন স্বাভাবিক থাকে সেটি আমরা দেখছি। আমরা আবারও বলছি কাউকে ধরার জন্য নয় আইনী কাঠামোর মধ্যে সকল প্রতিষ্ঠানকে থাকতে বলা হয়েছে। সবাইকে আইন মানতে হবে। আমরা সুশাসন চাই। পরে ভোক্তা অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা পরে উপজেলার কাজীপাড়া এলাকায় রূপচাঁদা ওয়েল মিলে অভযান শুরু করেন সেখানেও পরিদর্শন ও তদারকি করছেন তারা।