দূর্ঘটনাকবলিত প্রাইভেটারে মদ, লাশ ছিনিয়ে নিতে পুলিশ-স্বজনদের সংঘর্ষ, আহত-১৫

13

চাঁদপুরের শাহরাস্তিতে প্রাইভেটকার দুর্ঘটনায় নিহত পাঁচ ছাত্রলীগ নেতার মরদেহের ময়নাতদন্তকে কেন্দ্র করে তুলকালাম কাণ্ড ঘটেছে। ময়নাতদন্ত ছাড়াই মরদেহ নিয়ে যেতে চাইলে স্বজনদের সাথে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। এ ঘটনায় ২ পুলিশ সদস্যসহ কমপক্ষে ১৫ জন আহত হয়েছেন।

গতকাল বুধবার সন্ধ্যার দিকে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। পরে চাঁদপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুদীপ্ত রায় ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গিয়ে বলেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ১৭ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুঁড়েছে। এতে (গুলিতে) কেউ হতাহত হননি। তবে সংঘর্ষে কয়েকজন আহত হয়েছেন।
এর আগে মঙ্গলবার (২২ ফেব্রুয়ারি) দিবাগত রাতে চিতোষী-চাটখিল সড়কে একটি প্রাইভেটকার নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে পুকুরে পড়ে গেলে কুমিল্লার মনোহরগঞ্জ উপজেলার শাহপরান তুষার (২২), শাকিল হোসেন (২৬) ও রেজাউল (২৪) এবং যশোর জেলার শার্শা থানার নয়ন (২৫) ও গাজীপুর সদরের উত্তর খাইলপুর গ্রামের সাগর হোসেন (২৪) নামে পাঁচ জনের মৃত্যু হয়। প্রথম তিনজন জেলা এবং পরের দু’জন স্থানীয় ছাত্রলীগ নেতা।

স্থানীয়রা জানান, দুর্ঘটনায় মনোহরগঞ্জের তিন জনের মরদেহ ময়নাতদন্ত ছাড়াই হস্তান্তর করতে প্রশাসনের কাছে যান স্বজনরা। তবে এতে তারা ব্যর্থ হন। পরে বিকালে উঘারিয়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র থেকে নিহতদের মরদেহ শাহরাস্তি থানায় নেওয়ার পথে স্বজনরা বাধা দেন। একপর্যায়ে তারা ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে মরদেহ ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করলে পুলিশ ফাঁকা গুলি ছোড়ে।

প্রায় আধঘণ্টা সংঘর্ষের পর পুলিশ তিনজনের মরদেহ নিয়ে থানায় চলে আসে। এ সময় পুলিশসহ অনেকে আহত হয়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে উত্তেজিত জনতা বেশ কিছু দোকানপাট ও ঘরবাড়ি ভাঙচুর করে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সংঘর্ষে ২ পুলিশসহ আহতদের স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

চাঁদপুরের পুলিশ সুপার (এসপি) মো. মিলন মাহমুদ বলেন, নিহতদের গাড়িতে মদ পাওয়া গেছে। আবার তাদের শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্নও নেই। এ জন্য আমাদের সন্দেহ হয়েছে। একই গাড়িতে পাঁচ জন লোক ছিল। অথচ কেউই দরজা খুলে বের হতে পারলো না। বিষয়টি খুবই সন্দেহজনক। এ কারণে আমরা লাশগুলো ময়নাতদন্তের জন্য পাঠিয়েছি। ভিসেরা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করলে মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যাবে।

তিনি আরও বলেন, ময়নাতদন্ত ছাড়া লাশ হস্তান্তরের অনুমতি দেননি অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেটও। এ অবস্থায় ময়নাতদন্ত ছাড়া লাশ হস্তান্তর করার সুযোগ নেই। বর্তমানে পরিস্থিতি বিবেচনায় ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।