তালাক প্রাপ্ত স্ত্রীর থেকে শিশু সন্তান ছিনিয়ে নেওয়াকে কেন্দ্র করে মারধর আহত-৫

84

জামালপুর প্রতিনিধিঃ জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে তালাক প্রাপ্ত স্ত্রীর কাছ থেকে ছেলে সন্তান ছিনিয়ে নিতে বাধাদান কে কেন্দ্র করে মারধর করায় ৫ জন আহত হয়েছে। গতকাল রোববার রাতে উপজেলার ভাটারা ইউনিয়নের ফুলবাড়ীয়া গ্রামের আব্দুল মান্নান এর বাড়ীতে এ ঘটনা ঘটেছে। স্থানীয় ও আহতের পারিবারীক সুত্রে জানা গেছে,সরিষাবাড়ী উপজেলার ভাটারা ইউনিয়নের ফুলবাড়ীয়া গ্রামের আব্দুল মান্নান এর মেয়ের মালা খাতুন এর সাথে একই গ্রামের জিন্নত এর ছেলে হুমায়ুন এর সাথে ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে বিবাহ হয়। বিবাহের পর স্ত্রীর উপর নানা নির্যাতন করে হুমায়ুন। এর পরেও মালা খাতুন গত ২০২১ সালের ১১ নভেম্বর ১টি ছেলে সন্তান প্রসবের পর মালা খাতুন তার স্বামী হুমায়ুন কে গত ২০২১ সালের ২৮ নভেম্বর তালাক দেয় তার স্ত্রী। তালাকের পর গতকাল রোববার(৬ ফেব্রুয়ারি) সন্ধা রাতে হুমায়ুন ও তার ভাই হাফিজুর রহমান সহ সহযোগী নয়া মিয়ার ছেলে সাদ্দাম, পলাশ,উমর এর ছেলে হৃদয় সংঘটিত হয়ে শিশু ছেলে ফাইজুর রহমান মায়াজ (৩)মাসকে তার মা এর কোল থেকে অর্তকিত ভাবে ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা চালায়।এ সময় মালা খাতুন এর ডাক চিৎকারে মালার মা আকলিমা ও পিতা আব্দুল মান্নান, নানা আজিজুল হক, মামা মামুনুর রশিদ এগিয়ে এলে তাদের কে মারপিট করে গুরুতর আহত করে। আহতরা হলেন,মালা খাতুন(২১),আকলিমা আক্তার (৩৫),আজিজুল হক(৫৫),আব্দুল মান্নান(৪৫) মামুনুর রশীদ(৩২) আহত হয়।গুরুতর আহত আকলিমা আক্তার এর অবস্থা বেগতি দেখে সরিষাবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা: সাহেদুর রহমান গতকাল সোমবার সকালে জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে উন্নত চিকিৎসার জন্য প্রেরন করেছেন। বাকীদেরকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেরে ও স্থানীয় ভাবে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এ ব্যাপারে মালা খাতুনের বাবা আব্দুল মান্নান জানান, শিশু সন্তান ছিনিয়ে নিতে আমরা বাধা দিলে আমাদেরকে মারপিট করেছে হুমায়ুন ও তার ভাড়াটিয়া লোকজন। আমি এ ঘটনায় মামলা করবো। তিনি প্রশাসনের কাছে এর বিচার দাবী করেছেন। জানতে চাইলে সরিষাবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ মীর রকিবুল হক জানান, এ ঘটনায় কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে।