মহেশখালীর গহীন পাহাড়ে এসপি সার্কেলের অভিযান: ৪টি অস্ত্রসহ কার্তুজ-গুলি উদ্ধার, গ্রেফতার-১

83

ইঞ্জিনিয়ার হাফিজুর রহমান খান, স্টাফ রিপোর্টারঃ বাংলাদেশের একমাত্র দ্বীপ উপজেলা মহেশখালীর ক্রাইমজোন হিসেবে পরিচিত কালামারছড়া ইউনিয়নের গহীন পাহাড়ে ৮ ডিসেম্বর ভোররাতে কক্সবাজার জেলা পুলিশের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার জাহেদুল ইসলামের নেতৃত্বে মহেশখালী থানার ওসি (তদন্ত) আশিক ইকবালসহ সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ফকিরজুমপাড়ার ভান্ডারিজিরী নামক পাহাড়ে অভিযান চালিয়ে কালামারছড়া ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্বাসের ছোট ভাই, বঙ্গবন্ধু মানবকল্যাণ পরিষদের মহেশখালী উপজেলার শাখার সভাপতি আলোচিত রুহুল কাদের হত্যার সাথে জড়িত ফকিরজোম পাড়ার মৃত বদিউল আলমের পুত্র অস্ত্র তৈরির কারিগর শফিউল আলম প্রকাশ টুইন্ন্যা’কে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।

পরে অস্ত্র তৈরির কারিগর শফিউল আলম প্রকাশ টুইন্ন্যা দেখানো মতে তার বাড়ি থেকে নিজের তৈরী(সিশা কর্তুজ)-১৪টি, রাইফেলের গুলি ২রাউন্ড, ১টি ওয়ান সুটার, ২টি ত্রিকোয়াটার ১নলা বন্দুক, ১টি লম্বা এক নলা বন্দুক, ২টি রামদা, ৩টি কিরিচ উদ্ধার করেছে পুলিশ। অভিযানে নেতৃত্বদানকারী কক্সবাজার জেলা পুলিশের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মহেশখালী – কুতুবদিয়ার (সার্কেল) জাহেদুল ইসলাম জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে উপজেলার কালারমারছড়ার ইউনিয়নের ফকিরজুমপাড়ার ভান্ডারিজিরী নামক পাহাড়ে অভিযান চালিয়ে রুহুল কাদের হত্যায় জড়িত থাকার অভিযোগে এক জনকে আটক করি।

পরে তার স্বীকারোক্তি মতে তার বাড়ি থেকে অস্ত্রগুলো উদ্ধার করা হয়েছে । স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, আলোচিত রুহুল কাদের হত্যার সাথে জড়িত অস্ত্র তৈরির কারিগর শফিউল আলম প্রকাশ টুইন্ন্যা’ দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় সন্ত্রাসী রাজত্ব কায়েম করে আসছিল। তার গ্রেপ্তারে সংবাদ এলাকায় প্রকাশ পেলে সাধারণ জনগণ স্বস্তির নিশ্বাস ফেলে। মহেশখালী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ আব্দুল হাই সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আটককৃত ব্যক্তি একাধিক মামলার আসামী, তার বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট আইনে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।